Borhan IT https://www.borhanit.com/2020/12/blog-post_10.html

নতুনদের জন্য বিশেষজ্ঞ ব্লগারদের সেরা ১৩ টি পরামর্শ

 ব্লগিং আমাদের বর্তমান আধুনিক যুগে এমন একটি জিনিসে পরিণত হয়েছে যা মূলত শিল্প ও বিজ্ঞানের একটা মসৃন সমন্বয় বলা যায়। আর এ কারণে ধরে নেয়া হয় যে ব্লগিংয়ে সফল হবার জন্য আসলে কোনো "নির্দিষ্ট" রাস্তা নেই। বিভিন্ন রকম ভাবনার বিভিন্ন রকম লেখা দিয়ে শতশত ব্লগার সফল হয়েছেন। চিন্তার ভিন্নতা আর তার পরিপূর্ণ প্রকাশ করতে সক্ষম হয়েছেন বলেই হয়তো তারা সফল হতে পেরেছেন। তাই সফল ব্লগারদের কাছ থেকে পরামর্শ নেয়া ও অনুপ্রাণিত হয়ে কাজ করাটা বরাবরই ব্লগিংয়ের জন্য সহায়ক। আজকের লেখায় তাই আমি বিশেষজ্ঞ ব্লগারদের বাণীসহ এমনই চমৎকার ১৩ টি পরামর্শ তুলে ধরবো।



১. ধারণা নিন পাঠকের কাছ থেকে

"এমন ব্লগপোস্ট লিখুন যেগুলোতে আপনার সমাজের চারপাশের মানুষের সবচেয়ে মজার প্রশ্নগুলোর উত্তর লুকিয়ে আছে"

- ডেভ লারসন, প্রতিষ্ঠাতা, টুইটস্মার্টার


এটা বরাবরই ভালো ভালো আইডিয়া জোগাড়ের একটা চমৎকার পদ্ধতি। মানুষ যা শুনতে চায় তাই শোনান, মানুষের মনে যে প্রশ্ন রয়েছে তার উত্তর দিন। মানুষই আপনার লেখাকে টেনে নিয়ে পড়বে, ছড়িয়ে পড়বে লিখা।

২. আপনার পাঠককে বুঝতে শিখুন

"আপনি আপনার পাঠকদের ততটুকু বুঝতে চেষ্টা করুন যতটা তারা নিজেরাও নিজেদের বুঝতে পারে না। এটায় প্রচুর রিসার্চ প্রয়োজন, কখনো কখনো আপনি যাদের কথা তুলে ধরতে চাচ্ছেন তাদের একজন হয়ে উঠা প্রয়োজন; তবে এটার ফলাফল চমৎকার"

- ব্রায়ান ক্লার্ক, প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও, কপিব্লগার

আপনার পাঠককে বোঝা মানে এটা বুঝতে পারা যে ঠিক কি ধরনের লেখা তারা পছন্দ করবে, কি ধরনের লেখা তাদেরকে নাড়া দিতে পারবে। এটা করার জন্য একটা সহজ পন্থা হলো, ফেসবুক, টুইটার বা লিংকড ইনের মতো সোশ্যাল সাইটে কোনো টপিক রিলেটেড বাণী বা ছোট পোস্ট দিন। সেখানে পাঠকদের প্রতিক্রিয়া দেখুন, বোঝার চেষ্টা করুন তারা এখানে আগ্রহ দেখাচ্ছে কিনা, এই টপিকে মানুষের রেসপন্স মাথায় রেখে লিখুন।

৩. প্রথমে লিখুন নিজের জন্য

"নিজের জন্য লিখুন সর্বপ্রথমে। অন্যকেউ পড়বে কিনা, পছন্দ করবে কিনা; এধরনের চিন্তা ঝেড়ে ফেলে কোনো টপিকে নিজের শব্দগুলোকে আগে গাঁথতে শিখুন। আপনার চিন্তা, আইডিয়া, মতামত ইত্যাদির উপর ফোকাস করে লিখুন, পাঠকগোষ্ঠী আপনা থেকেই তৈরি হবে"

- আদি পিয়েনার, প্রতিষ্ঠাতা, পাবলিকবেটা


তাঁর ক্ষেত্রে ব্যাপারটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে উপকারী হয়েছে কেননা তিনি বলেন, যখনই তিনি নিজের জন্য লিখতে শুরু করলেন তিনি দেখলেন তার লেখা বেশি হচ্ছে এবং পাবলিশও করছেন বেশি। অর্থাৎ, পারিপার্শ্বিক চাপ এড়িয়ে তিনি নিজের জন্য লিখতে থাকলে সেটায় স্বতঃস্ফূর্ততা আসে অনেক যা একজন লেখকের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।

৪. আপনার ইমেইল লিস্ট বানান

"একদম শুরু থেকেই আপনার ইমেইল লিস্ট রেডি করুন। এমনকি যদি আপনার নিজের লিখা বিক্রির উদ্দেশ্য না ও থাকে, তবুও। কেননা এই লিস্ট আপনাকে আপনার লেখার প্রোমোশনের নিশ্চয়তা দেয় কোনো প্রকার সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি নিয়ে দুশ্চিন্তা ছাড়াই।"

- ক্রিস্টি হাইন্স, ফ্রিল্যান্স রাইটার ও প্রফেশনাল ব্লগার


যখন আপনার লেখার জন্য পাঠকদের ইমেইল সাইনআপ করতে বলছেন তখন সেখানে "ইমেইলের মাধ্যমে আমার লিখা পড়ুন" জাতীয় কিছু না লিখে পাঠকের চাহিদা ও প্রয়োজন মেটাচ্ছে এমন কোনো লেখা ব্যবহার করুন। মানুষের ইমেইল সাইনআপ করার প্রবণতা বেড়ে যাবে।

৫. বর্তমান পাঠকদের ভালোবাসুন

"আপনার বর্তমান পাঠকদের ভালোবাসুন, তাদের চাহিদা মাথায় রাখুন। অনেক ব্লগারদের দেখা যায় নতুন পাঠক আনতে উঠে পড়ে লেগে থাকেন। সেটা খারাপ কিছু নয় তবে আপনাদেরকে বর্তমানে থাকা পাঠকের প্রতিও খেয়াল রাখতে হবে। তাদেরকে বোঝান যে আপনার কাছে তাদের যথেষ্ট মূল্য রয়েছে, দেখবেন তারাই আপনাকে আরো গ্রো করতে সাহায্য করবে।"

- ড্যারেন রোজ, প্রতিষ্ঠাতা, প্রোব্লগার


একটা ব্লগ আসলে দুইভাবে দেখা যায়। এক হলো এটা জাস্ট একটা টেকনোলজি, একটা প্ল্যাটফর্ম। আরেক হলো এটা পাঠককূলের একটা বিশ্বাস যে এখানে আসলেই একটা কন্টেন্ট রয়েছে। এখানে পড়ার মতো, জানার মতো নতুন কিছু শব্দ রয়েছে। যেমন আমাদের খবরের কাগজ। রোজ সকালে ছুঁড়ে দেয়া কয়েকটা পৃষ্ঠা হিসেবে নয় বরং মানুষ এতে মনযোগ দেয় তার দেশ, সময় বা তার শহর কিংবা পুরো বিশ্বকে নিয়ে জানতে, সেখান থেকে কিছু একটা পাওয়ার উদ্দেশ্যে।

৬. কল-টু-একশন গড়ে তোলায় মনযোগ দিন

"বেশ কয়েকবছর এমন হয় যে আমি লিখেই যাচ্ছি লিখেই যাচ্ছি কিন্তু একটা দৃঢ় পাঠকগোষ্ঠী দাঁড় করাতে পারছি না, টুইটারে কেউ ফলো করছে না। অথচ আমার লেখা বেশ কয়েক জায়গায় যথেষ্ট ভালো করছে। এরপর বুঝলাম মানুষ নিজে থেকে আইডেন্টিটি খুঁজে আমাকে পড়তে আসবে না। তাই লেখার শেষে কল টু একশন যেমন একটা ইমেইল লিস্টে সাইন আপ করে রাখার মতো কাজ জুড়ে দিতে লাগলাম। এভাবে করে পাঠকদেরকে আমার লেখায় নিয়মিত যুক্ত করা সম্ভব হয়েছে।"

- নেট কন্টনি, প্রতিষ্ঠাতা, ড্রাফট


৭. উপহার সামগ্রী বিলিয়ে দিন

"যতটা সম্ভব ফ্রি কন্টেন্ট দিন যতক্ষন না আপনার খুব সমস্যা হয়ে যায়। এতে করে মানুষ খুশি হবে এবং আপনার লেখায় উপকৃত হলে তারা আপনার বিশ্বস্ত পাঠক হয়ে উঠবে।"

জেফ বুলাস, ব্লগার ও স্বত্বাধিকারী, ব্লগিং দ্যা স্মার্ট ওয়ে।

গবেষণায় উঠে এসেছে যে ওয়েবসাইটের এক কোণায় একটা ফ্রি কন্টেন্ট এর সার্ভিস শো করার মাধ্যমে ১২৫% পর্যন্ত ইমেইল সাবস্ক্রাইবার বাড়ানো যায়।

৮. ধারাবাহিকতা

"ধারাবাহিকতা একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা ব্লগাররা প্রায়ই ভুলে যান। মনে রাখবেন, পাঠক তৈরির চেয়ে হারানো সহজ। তাই ব্লগিং নিয়মিত রাখুন।"

- নীল প্যাটেল, প্রতিষ্ঠাতা, কিসমেট্রিক্স

কথাটি বিভিন্ন গবেষণায়ও এসেছে যে নিয়মিত ব্লগিং, লেখার সাবস্ক্রাইবার বাড়াতে সহায়তা করে।

৯. আপনার জ্ঞানকে বিলিয়ে দিন

"আপনার জ্ঞানকে তুলে ধরতে, ছড়িয়ে দিতে কখনো দ্বিধা করবেন না। অনেকেই নিজের লেখার একান্ত গোপন রহস্য ফাঁস হয়ে যাবে ভেবে অনেককিছুই বিলিয়ে দিতে ভয় পান। কিন্তু এই সুপারফাস্ট ইন্টারনেটের যুগে আসলে গোপন রহস্য বলে কিছু নেই। নিজের প্রয়োজনেই নিজের জ্ঞানকে বিলিয়ে দিন।"

- জে বেয়ার, স্বত্বাধিকারী, ইউটিলিটি


প্রকৃত অর্থেই কিন্তু তাই। আপনি একটা কিছু জানেন, সেটা অন্য কাউকে জানাতে চান না বলে যদি আজকে শেয়ার না করেন। তাহলে কালকে সেটাই অন্য কেউ শেয়ার করবে এবং এর দ্বারা লাভবান হবে। সুতরাং, নিজের জ্ঞানকে নিজের কাজেই ব্যবহার করুন অন্যের উপকারের মধ্য দিয়ে।

১০. নিজের কন্ঠের সত্যতা ধরে রাখুন

" আপনি যা বলছেন সেটা সত্য বলুন, তা নিজের মধ্যে ধারণ করুন। নিজের মধ্যে তার প্রতিফলন রাখুন। মানুষ সাইটের চেয়ে ব্যক্তিকে ফলো করে বেশি।"

- ক্রিস পিরিলো, প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও, লকারনোম


ব্লগিং কেবলই সঠিক টপিক নিয়ে লিখা নয়। বরং ব্লগিং হতে হবে এমন বিষয়ে যা আসলেই ম্যাটার করে, যা পাঠকের জানা উচিত, পাঠকের যেভাবে ভাবা উচিত। 

১১. ব্লগিংকে সময় দিন

"ব্লগিং সফলভাবে করতে হলে এখানে দীর্ঘ সময় ব্যয় করার মানসিকতা রাখুন। ওয়েব একটা বিশাল জায়গা যেখানে হাজারো ব্লগার গিজগিজ করছে। তাদের চেয়ে ভালো কোয়ালিটি বেশি সময় ধরে সার্ভ করে যেতে হবে। আপনি যদি অল্প সময়ে টাকা-খ্যাতি অর্জন করতে চান তাহলে ব্লগিং একটা ভুল রাস্তা। কিন্তু যদি দীর্ঘদিন যাবৎ নিয়মিত ভালো ও কোয়ালিটি বজায় রেখে লিখে যেতে পারেন, ব্লগিং থেকে আপনি স্মরণীয় রকমের অর্জন লাভ করতে পারেন।"

- র‍্যান্ড ফিশকিন, সিইও, মজ

সময় লাগবে, সময়ের সাথে নিজেকেও প্রতিনিয়ত ডেভেলপ করতে হবে এবং আস্তে আস্তে একটা দৃঢ় পাঠকগোষ্ঠী তৈরি হবে। যারা একদিনে তৈরি হয় নি, তারা একদিনে হারিয়েও যাবে না। সময় নিয়ে ব্লগার হয়ে উঠার এটা একটা চমৎকার দিক।

১২. আপনার ইমেইল লিস্টকে প্রায়োরিটি দিন

"আপনি যদি লেখা দিয়ে বিজনেস করতে চান, বা কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে লিখালিখি করেন; আপনাকে অবশ্যই একটা ইমেইল লিস্ট তৈরি করতে হবে। সেই লিস্টের মানুষজন হয়ে উঠবে আপনার কমিউনিটি। তাদের জন্য লিখা, তাদের চাহিদাকে মূল্য দেয়া এগুলো হতে হবে আপনার একদম প্রথম লক্ষ্য।"

জেমস ক্লিয়ার, উদ্যোক্তা, ভারোত্তোলক, ট্রাভেল ফটোগ্রাফার।

পাঠকদের জন্য, তাদের চাহিদার প্রতি সম্মান রেখে নিয়মিত লিখার মাধ্যমে আপনার লেখা তাদের জীবনের অংশ হয়ে উঠবে, একটা গাঢ় সংযোগ তৈরী হবে লেখার মাধ্যমে। একটা ব্লগারের জন্য এরচেয়ে দারুন কিছু হতে পারে না।

১৩. আকর্ষণীয় শিরোনাম লিখুন

"আপনার কন্টেন্ট যতই ভালো হোক না কেন, সেটা ফেইল করার সম্ভাবনা আছে যদি না শিরোনাম আকর্ষণীয় না হয়। আপনার লেখায় পাঠক ক্লিক করবে কিনা সেটার জন্য পাঠক সেকেন্ডেরও কম সময় নেয়। এর মধ্যেই আপনার লেখার শিরোনামকে তাকে আকৃষ্ট করতে হবে। আপনার শিরোনামটিকে রাখুন সাধারণ, শক্তিশালী, কার্যকরী ও সাফ।"

ডেভ কারপেন, স্বত্বাধিকারী ও সিইও, লাইকেবল লোকাল


ছবি সংগৃহীত: Buffer.com

শিরোনামই নির্ধারণ করে আপনার লেখায় কি আছে, শিরোনাম দেখে আকৃষ্ট হলে সেটা শেয়ার করার প্রবণতা বাড়ে পাঠকের, শিরোনাম আকর্ষণীয় না হলে ভেতরের আকর্ষণীয় লেখা অবধি পাঠক পৌঁছায় না; এত এত ফ্যাক্টর কাজ করে এই শিরোনাম নিয়ে। সুতরাং, আপনার পরবর্তী লেখার জন্য একটা চমৎকার, দৃষ্টি আকর্ষক শিরোনাম ভাবতে ভুল করবেন না যেন!

ব্লগিং হোক চমৎকার

প্রচুর চেষ্টা আর শ্রম দিয়েও একজন সফল ব্লগার হতে পারেন নি এমন উদাহরণ কম নয়। অথচ সফলদের অভিজ্ঞতা থেকে পরামর্শ নিলেই ব্লগিংয়ের অনেক চমৎকার দিক জানা যায় সহজেই। সুতরাং, আজকের লেখায় বিশেষজ্ঞ-সফল ব্লগারদের এমনই ১৩ টি পরামর্শ ও তার ব্যাখ্যা তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।

আশা করছি আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লাগবে। যদি ভালো লাগে লেখাটি শেয়ার করে দিন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়, কমেন্টে জানাতে পারেন আপনার মতামত। সকলের সর্বাঙ্গীন সুস্বাস্থ্য কামনা করে আজ এখানেই শেষ করছি। ধন্যবাদ।


অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া