Borhan IT https://www.borhanit.com/2020/12/blog-post_3.html

আপনার এন্ড্রয়েড করে তুলুন স্বয়ংক্রিয়!

 এন্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারের অনেক অনেক সুবিধার মধ্যে অন্যতম সেরা যে বিষয়টা আমার ব্যক্তিগতভাবে ভীষন পছন্দ তা হলো এতে ব্যবহারযোগ্য হাজার হাজার রকমের ফিচার আর ফ্লেক্সিবিলিটি। আপনি চাইলেই সহজে আপনার এন্ড্রয়েড ফোনটি কাস্টমাইজ করে ঠিক যেমন রকম চান তেমন রকমে সাজিয়ে নিতে পারেন। ফোনের গোটা এপিয়ারেন্স নির্ধারণ করে নিতে পারেন আপনি নিজে। এর মধ্যে এমন অনেকসময় হয় যে একটা নির্দিষ্ট এপ বা ফিচার ব্যবহার করে কোনো কাজ খুব ঘনঘন আমাদের করতে হয়। কেমন হয় সেটা যদি করে নেয়া যায় অটোমেটেড বা স্বয়ংক্রিয়? আপনাআপনিই কাজ করতে পারে সেটি? শুনতে বেশ ভালো লাগছে, তাই না? আজকে লিখবো সে বিষয়েই! চলুন শুরু করা যাক!




কিভাবে করা যায় অটোমেশন?

নিঃসন্দেহে এই কাজের জন্য সবচেয়ে ভালো এপ ধরা হয় Tasker কে। এটি অত্যন্ত শক্তিশালী ও যথেষ্ট সক্ষম একটি এপ। এতে যদিও কিছু জিনিস ধীরে ধীরে শিখে নেয়ার ব্যাপার থাকে তবে চিন্তার কিছু নেই। আমি একদম সহজে দেখিয়ে দিচ্ছি কিভাবে টাস্কার কাজ করে ও কিভাবেই বা এটি ব্যবহার করবেন।

টাস্কার দিয়ে অটোমেশন যেভাবে কাজ করে

Tasker মূলত এমন একটি এপ যা আপনার ফোনে বিভিন্ন টাস্ক কে স্বনিয়ন্ত্রন বা অটোমেট করতে দেয় কিছু ট্রিগারের মাধ্যমে। ট্রিগার মূলত কিছু কাজ বা টাস্ককে টার্গেট করে। সুতরাং আপনি কোনো নির্দিষ্ট লোকেশনকে ট্রিগার হিসেবে সেট করে নিতে পারেন কোনো টাস্ক বা নটিফিকেশন পাঠানোর মতো কাজের জন্য। একবার Tasker ব্যবহারে অভ্যস্ত হয়ে গেলে পরবর্তীতে আপনি নিজেও বিভিন্ন কাজ মডিফাই করে নিয়ে করতে পারবেন।

১. ওয়াইফাই কানেক্টেড অবস্থায় ক্রোম চালু করুন অটোমেটিক

প্রায়ই আমাদেরকে ক্রোম ব্যবহার করে বিভিন্ন প্রকার কাজ করতে হয়। বেশিরভাগ ব্রাউজিং সম্পর্কিত কাজ আমি ক্রোমের মাধ্যমেই  করে থাকি। তাই আমার জন্য বেশ সুবিধাজনক হবে যদি ওয়াইফাই কানেক্টেড থাকা অবস্থায় ক্রোম অটোমেটিক কাজ করে। কাজটির ধাপগুলো নিম্নরূপ:

১. Tasker লঞ্চ করুন। প্রোফাইল ট্যাবের প্লাস (+) আইকনে ক্লিক করুন নতুন প্রোফাইল ক্রিয়েট করার জন্য। এরপর পপআপ মেন্যু থেকে State অপশন সিলেক্ট করুন।



২. State চাপার পর এক গুচ্ছ অপশন দেখতে পাবেন। সেখান থেকে Net সিলেক্ট করার পরবর্তীতে ট্যাপ করুন “Wifi Connected” অপশনে।



৩. আপনি যদি চান যে ওয়াইফাইটি শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট নেটওয়ার্কে কানেক্টেড থাকলেই কাজ করুক, তাহলে SSID ফিল্ডে ওই নেটওয়ার্কটি প্রবেশ করান।
হয়ে গেলে এরপর স্ক্রিনের টপ লেফটে থাকা উল্টা তীর চিহ্নে ট্যাপ করুন। “New Task” ও প্লাস সাইন সমেত একটি পপআপ শো করবে, সেখানকার প্লাস আইকনে ট্যাপ করুন।



৪. অতঃপর Launch Chrome এর মত যেকোনো কিছু একটা নাম সেট করুন ও টিক মার্ক করে দিন।



৫. সেটিংয়ের কাজ শেষ। এবার একটা টাস্ক এড করার পালা! প্লাস আইকনে ক্লিক করে ট্যাপ করুন App এ।



৬. অতঃপর Launch App এ ট্যাপ করার পর এপ সিলেকশন মেন্যু থেকে ক্রোম সিলেক্ট করুন।



৭. স্ক্রিনের টপ লেফট অংশ থেকে উল্টা তীর চিন্হ তে ক্লিক করার পর Data ফিল্ডে একটু নির্দিষ্ট ট্যাবের URL প্রবেশ করাতে পারেন যেন ওয়াইফাই কানেক্টেড হলেই সেই ট্যাবটি অটোমেটিক ওপেন হয়ে যায়।



২. হেডফোন কানেক্টেড হলেই মিউজিক চালু হবে

গানপাগল মানুষ আমরা অনেকেই। কেমন হয় যদি হেডফোন কানেক্ট করলেই বেজে উঠে গান? এই প্রশ্নের উত্তরে 'না' বলবেন এমন মানুষ পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না। দেখে নেয়া যাক, কিভাবে করা যায় কাজটি!

১. প্রোফাইল ট্যাব থেকে প্লাস আইকনে ক্লিক করে অতঃপর State অপশনে ট্যাপ করুন।

২. এরপর Hardware এ ট্যাপ করুন এবং পরবর্তীতে ট্যাপ করুন Headset Plugged অপশনে।



৩. এরপর আপনি চুজ করতে পারেন যে প্রোফাইলটি কি Any অর্থাৎ যেকোনো হেডফোনেই একটিভেট হবে নাকি মাইকযুক্ত বা বিহীন নির্দিষ্ট কোনো হেডফোনের ক্ষেত্রে হবে। হয়ে গেলে এরপর উল্টা তীর চিহ্নে ক্লিক করে ফিরে আসুন।



৪. অতঃপর New Task এ ট্যাপ করে এর একটি নাম দিন


৫. স্ক্রিনের নিচের দিকে প্লাস আইকনে ট্যাপ করে অতঃপর App এ ট্যাপ করুন।



৬. এবার Launch App এ ট্যাপ করে নির্দিষ্ট মিউজিক প্লেয়ার সিলেক্ট করুন।

৭. এবার আগের নিয়মে উল্টা তীর চিহ্নে ক্লিক করে ফিরে আসুন।

৩. ব্যাটারি লো হয়ে গেলে ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে

আমাদের প্রায়ই নানান কাজ করতে করতে ব্যাটারির দিকে খেয়াল থাকে না। কখন সেটা কমতে কমতে শূন্যের দিকে চলে আসে টেরও পাই না। আর এই ব্যাটারি খরচে একটা বড় ভূমিকা পালন করে ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ। দেখে নেয়া যাক ব্যাটারি লো হলেই কীভাবে অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে এই দুটি।

১. Tasker এ নতুন প্রোফাইল সেট করে State এ যান।

২. এবার Power এ গিয়ে Battery Level সিলেক্ট করুন



৩. একটা নির্দিষ্ট ব্যাটারি রেন্জ ঠিক করুন এরপর ব্যাক এরো চাপুন।



৪. New Task এ ট্যাপ করে নাম দিন Low Battery



৫. একটি নতুন একশন ক্রিয়েট করে এরপর Net ও এরপর WiFi তে যান।



৬. Wifi এ off সেট করুন এবং ফিরে আসুন।



৭. একটি নতুন একশন ক্রিয়েট করে এরপর Net ও এরপর Bluetooth এ যান।



৮. ব্লুটুথ off এ সেট করুন ও ফিরে আসুন।

ব্যস, এখন থেকে ব্যাটারি নির্দিষ্ট একটা পার্সেন্টেজের নীচে নামলেই ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ অটোমেটিক অফ হয়ে যাবে।

৪. অফিসে পৌঁছামাত্র ওয়াইফাই অন হয়ে যাবে

এমন যদি হয় যে অফিসে ঢোকার পর আপনার ওয়াইফাই ব্যবহার শুরু করতেই হয় তাহলে সেটা চালুর দায়িত্বটা অটোমেশনের উপর ছেড়ে দিতেই পারেন।

১. একটি নতুন প্রোফাইল ক্রিয়েট করে Location এ যান।



২. অফিসে থাকাবস্থায় GPS আইকনে ক্লিক করে নিজের লোকেশন বের করে নেয়া যায় কিংবা ম্যাপ ওপেন করে জায়গামতো লোকেশন পিন সেট করে নেয়া যায়। এরপর ফিরে আসুন আগের নিয়মেই।



৩. এরপর New Task এ গিয়ে সেটার জন্য নাম সেট করুন।

৪. অতঃপর যোগ করুন একটি নতুন Action - Net - WiFi



৫. Set ভ্যালুটিকে On করে দিন ও ফিরে আসুন।



এবার থেকে অফিসে পৌছালেই ওয়াইফাই অটোমেটিক চালু হয়ে যাবে।

৫. অফিস ছেড়ে বেরুলেই ওয়াইফাই অফ হয়ে যাবে

অফিসে যাওয়ামাত্র ওয়াইফাই অন করতে তো শিখে গেলাম, অফিস থেকে বেরুলে যেন তা বন্ধও হয়ে যায়, সেটিও তো জেনে রাখা প্রয়োজন!

১. একটি নতুন প্রোফাইল ক্রিয়েট করে Location এ যান।



২. যদি এই আর্টিকেলটি ফলো করে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার অফিস ও বাসার লোকেশন Tasker এ ইতোমধ্যে মার্ক করেছেন। সিম্পলি অফিস লোকেশনটি সিলেক্ট করে নিন।

৩. New Task এ যান ও এর নাম সেট করুন।

৪. অতঃপর যোগ করুন একটি নতুন Action - Net - WiFi



৫. Set ভ্যালুটিকে Off করে দিন ও ফিরে আসুন।



এবার থেকে আপনার কর্মস্থল ত্যাগ করলেই ওয়াইফাই অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে!

৬. চার্জিংয়ের সময় বিভিন্ন অটোমেশন

রাতে ঘুমাবার সময় যারা ফোন চার্জে দিয়ে থাকেন তাদের জন্য এটি বেশ কাজে দেবে। এটার মাধ্যমে চার্জে থাকা অবস্থায় আপনার ইচ্ছা হলে ফোনের ভলিউম ও ব্রাইটনেস জিরোতে রাখতে পারেন ফলে হঠাৎ জোরালো আওয়াজ বা স্ক্রিনের আলোয় বিরক্ত হতে হবে না।

১. একটি নতুন প্রোফাইল ক্রিয়েট করে Time এ যান।

২. আপনার ঘুমুতে যাবার সময় সেট করে এরপর ফিরে আসুন।



৩. New Task এ যান ও এর নাম সেট করুন।



৪. একটি নতুন একশন ক্রিয়েট করুন - Audio Ringer Volume



৫. ভ্যালু 0 সেট করে দিন, নটিফিকেশন ভলিউমের জন্যও একই কাজ করুন।


৬. আরেকটি একশন ক্রিয়েট করুন - Display - Display brightness

৭. এবার ব্রাইটনেস 0 বা আপনার ইচ্ছেমতো কমিয়ে নিন ও ফিরে আসুন।



এবার থেকে আর ফোনের ভলিউম বা ব্রাইটনেস ঘুমের ডিস্টার্ব করতে পারবে না।

৭. চার্জিং শেষে আবার পূর্বাবস্থায় ফিরে যান

রাতে সেট করে নেয়া ব্রাইটনেস ও ভলিউম আবার আগের জায়গায় ফিরিয়ে নিয়ে আসাও সম্ভব অটোমেশনের মাধ্যমে।

১. একটি নতুন প্রোফাইল ক্রিয়েট করে Time এ যান।

২. আপনার ঘুম থেকে উঠার সময় সেট করে এরপর ফিরে আসুন।





৩. New Task এ যান ও এর নাম সেট করুন।

৪. একটি নতুন একশন ক্রিয়েট করুন - Audio Ringer Volume



৫. আপনার মনমতো লেভেলে ভলিউম সেট করে নিন, নটিফিকেশন ভলিউমের জন্যও একই কাজ করুন।



৬. আরেকটি একশন ক্রিয়েট করুন - Display - Display brightness



৭. ইচ্ছেমতো ব্রাইটনেস লেভেল সেট করে ফিরে আসুন।



ছবি সংগৃহীত: Beebom.com

এবার থেকে প্রতিদিন সকালে Tasker আপনার ফোনের ভলিউম ও ব্রাইটনেস অটোমেটিক আগের অবস্থায় নিয়ে যাবে।

Tasker এর মাধ্যমে ফোন হয়ে উঠুক স্বয়ংক্রিয়!

Tasker নামক অসাধারন এপটির সাহায্যে আমরা কিভাবে আমাদের ফোনের অধিক করা হয় এমন বিভিন্ন কাজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেরে নিতে পারি তা আমি আজকের আর্টিকেলে একদম ধাপে ধাপে ভেঙে দেখিয়েছি। আশা করছি বিষয়গুলো সবারই ভাল লাগবে।সেক্ষেত্রে, লেখাটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়া করে কমেন্ট করে আপনার মতামত জানাতে পারেন।
সকলের সর্বাঙ্গীন সুস্থতা কামনা করে আজ এখানেই শেষ করছি।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া