Borhan IT https://www.borhanit.com/2020/12/blog-post_4.html

কীভাবে শপিফাই স্টোর শুরু করবেন?

 প্রযুক্তির বিকাশের সাথে সাথে বদলেছে ব্যাবসা বাণিজ্যের ধরণ। এইতো কিছু দিন আগে ও অনলাইনে কেনাকাটা করা ছিলো মানুষের কাছে স্বপ্নের মত। কিন্তু বর্তমানে ই-কমার্স জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। 

"Amazon", "Ali Baba" কিংবা দেশীয় "Daraz", "Evally" দেখলেই বুঝতে পারবেন ই-কমার্স কত জনপ্রিয়। আজকে তেমনই একটি ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম  "Shopify" নিয়ে আলোচনা করব। আপনি যদি শপিফাই স্টোর শুরু করতে চান তবে মনোযোগ দিয়ে পুরো পোসটটি পড়ুন। চলুন শুরু করা যাক।


শপিফাই কি?

শপিফাই হচ্ছে একটি হোস্টেড ই-কমার্স ওয়েবসাইট বিল্ডার যেটা ব্যবহার করে আপনি খুব সহজে আপনার ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করতে পারবেন অথবা অনলাইন শপ দিতে পারবেন। আপনার ব্যবসায়ের জন্য খুব সহজে ওয়েবসাইট তৈরি থেকে শুরু করে পণ্য বিক্রি এমনকি পেমেন্ট ও নিতে পারবেন অনলাইনে। 

সেই সাথে রাখতে পারবেন আপনার মজুদ পণ্যের হিসাব ও। কোনো রকম টেকনিক্যাল সমস্যা ছাড়াই আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন এমনকি ওয়েবসাইটের সিকিউরিটি, আপডেট, ব্যাকআপ ইত্যাদি বিষয়সমূহ নিয়ে কোনো চিন্তাই করতে হবে না।


কীভাবে শুরু করবেন শপিফাই স্টোর

 ধাপ ১ঃ

শুরুতেই শপিফাই স্টোর শুরু করতে আপনাকে যেতে হবে Shopify.Com এ। এটি একটি পেইড ই-কমার্স সাইট শুরুতেই আপনি ১৪ দিনের ফ্রি ট্রায়াল দিয়ে শুরু করতে পারবেন যাই হোক সেটা নিয়ে পরে আসছি। 

শপিফাই ডট কম "Shopify.Com" এ যাওয়ার পর প্রথমেই  আপনার ইমেইল,পাসওয়ার্ড এবং আপনার শপের নাম দিয়ে আপনার স্টোর তৈরি করবেন।


শপ দিতে গেলেই আপনি একটি ফ্রি ডোমেইন নেম পেয়ে যাচ্ছেন তাই নাম সিলেক্ট করার সময় অবশ্যই সাবধান থাকতে হবে করণ পরবর্তীতে এটি আপনার ইউআরএল(URL) বা ডোমেইন(Domain) হিসেবে কাজ করবে।

যাই হোক স্টোর তৈরি করা হয়ে গেলে তারা আপনার ব্যবসা সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন জানতে চাইবে। যেমন;

ধাপ ২ঃ

১। Are you already selling?

যেহেতু আপনি মাত্র ব্যবসা শুরু করবেন তাই অবশ্যই "I'm selling. Just not online" সিলেক্ট করে দিতে পারেন এছাড়া ও আরো অপশন আছে আপনি আপনার পছন্দ মত যেকোনো একটা দিতে পারেন।

২। How do you want to sell?

আপনি কিভাবে বিক্রি করতে চাচ্ছেন সেটার জন্য ( শুধু অনলাইনে, ব্যক্তিগতভাবে, অথবা দুটোই) যে কোনো এটা অপশন বেচে নিবেন।

৩। Where will you mostly sell in person?

এখানে আপনি আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী দিতে পারেন আপনি ব্যক্তিগত ভাবে কোথায় কোথায় বিক্রয় করতে চান।

৪। What is your current revenue?

আপনি যদি নতুন শুরু করেন তবে জিরো সিলেক্ট করতে পারেন আবার আপনার ব্যাবসা থাকলে সেটার "revenue" সিলেক্ট করতে পারেন।

এরপর "Are you setting up a store for a client?" এ yes, ক্লিক করে নেক্সট  স্টেপে চলে যাবেন।

ধাপ ৩ঃ

এই ধাপে আপনাকে আপনার ঠিকানা দিতে হবে। ঠিকানা প্রদানে অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করবেন কারণ এটিই আপনার পেমেন্ট এবং আপনার বিজনেস এড্রেস হিসেবে ব্যবহার হবে।

ধাপ ৪ঃ

এই ধাপে আপনাকে আপনার সাইটের জন্য থিম সিলেক্ট করতে হবে তার জন্য আপনাকে যেতে হবে ডানপাশে থাকা অনলাইন স্টোর অপশনে। 

থিম ব্যবহার করতে আপনি থিম স্টোরে গিয়ে নিজের পছন্দমত থিম নিতে পারেন শপিফাই আপনাকে ১০+ থিম ফ্রিতে ব্যবহার করতে দিবে। এছাড়া ও আপনি যদি চান নিজের পছন্দ মত পেইড থিম ব্যবহার করবেন সেক্ষেত্রে আপনাকে পেমেন্ট করতে হবে।

ধাপ ৫ঃ

থিম সিলেক্ট করার পর আপনাকে যা করতে হবে তা হচ্ছে থিম কাস্টমাইজ অর্থাৎ আপনার নিজের মত করে সাইটকে সাজিয়ে নিতে হবে যাতে করে ক্রেতা আকৃষ্ট হয়।

কাস্টমাইজ অপশনে যাওয়ার পরে আপনি পুরো সাইটের একটি লে-আউট পাবেন। সেখান থেকে আপনি লে- আউট অনুয়ায়ী কাস্টমাইজ করবেন। পর্যায় গুলো নিচে বর্ণনা করা হল

১।  হেডার

আপনাকে প্রথমেই হেডারের জন্য এটি ইমেজ ব্যবহার করতে হবে। সে জন্য আপনি আপনার ব্যবসায়ের ধরন অনুযায়ী একটি লোগো ও নিতে পারেন। 

ইমেজ সিলেক্ট করার পরে এনাউন্সমেন্ট বারে কিছু একটা লিখবেন।যেমন ফ্রি শিফিং। এছাড়াও আপনি আপনার সাইটের লিংক ওকানেক্ট করি দিতে পারবেন। 

২। ইমেজ এবং টেক্সট

এখানে আপনি আনার ব্যবসা সম্পর্কিত কোনো ইমেজ ব্যবহার করতে পারেন। ইমেজ আপলোড করার পরে আপনি কিছু টেক্সট লিখতে পারেন। যেমন হেডিং এ "Welcome" এর পর আপনার ব্যবসা সম্পর্কে গ্রাহক কে ধারণা দিতে ব্যবস্থা সম্পর্কিত কিছু লিখতে পারেন তবে সেটা যেন কম কথায় সুন্দর কিছু হয়। 

টেক্সট এর নিচে আপনি কিছু বাটন ও যোগ করতে পারেন যেমন "Shop Now" এবং আপনার প্রোডাক্ট এর লিংক যোগ করে দিতে পারবেন। সব সিলেক্ট করা হয়ে গেলে সেইভ করে পরের অপশনে যাবেন।

৩। থিম সেটিং

এখান থেকে আপনি আপনার সাইটের জন্য মানানসই কালার সিলেক্ট করে নিতে পারবেন অথবা ইচ্ছা করলে ডিফল্ট কালার ও রাখতে পারেন। এছাড়া ও সোস্যাল মিডিয়া আইকন যোগ করতে পারবেন সাথে লিংক ও কানেক্ট করতে পারবেন। 

এরপর আপনি আপনার সাইটের জন্য একটি ফ্যব আইকন দিতে চাইলে সিলেক্ট করা ফ্যব আইকন আপলোড করতে পারবেন।

৪। ইমেজ এবং টেক্সট সেকশন

এখানে আপনি আপনার কোনো প্রোডাক্ট এর ছবি এবং তার কিছু বিবরণ দিতে পারেন।

৫। স্লাইড শো

এই সেকশনে আপনি আপনার হেডার ইমেজ এর সাথে মিল রেখে কিছু ইমেজ দিতে পারেন যে গুলো স্লাইড হিসেবে গ্রাহকের সামনে উপস্থাপন করা হবে। সাথে কিছু টেক্সট এবং বাটন ও এড করতে পারেন।

৬। ফুটার

এই সেকশনে আপনি আপনার পেমেন্ট মেথড গুলো এড করতে পারেন আইকন সহ। যেমন পেপাল, পাইওনিয়ার। এর সাথে আপনি সেখানে একটি নিউজলেটার অপশন ও পাবেন যেটি দিয়ে আপনি ইমেইল এড্রেস বা সাবসক্রাইব এর মাধ্যমে ই-মেইল লিস্ট তৈরি করতে পারবেন। 

এছাড়া "Talk about business" এ আপনার ব্যবসায়ের ধারণা দিতে পারেন।এছাড়া ও গ্রাহকের জন্য হেল্প অপশনটি ও যোগ করতে পারবেন।

ধাপ ৬ঃ

এই ধাপে আপনাকে যেতে হবে সেটিংস অপশনে। সেখান থেকে যা যা সেটিংস করতে হবে

১। General

এইখানে আপনি ইচ্ছা করলে আপনার স্টোরের নাম পরিবর্তন করতে পারবেন। তাছাড়া ও আপনি যদি শপিফাই থেকে কোনো নোটিফিকেশন পেতে চান তার জন্য "Account Email" সিলেক্ট করতে পারবেন। 

কাস্টমারের জন্য আলাদা ইমেইল দিতে পারেন যেটি দিয়ে তারা আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারবে।

২। Payments Provider

এখানে বাই- ডিফল্ট হিসেবে পেপাল একাউন্ট দেয়া থাকে। আপনাকে যা করতে হবে payment এর জন্য একাউন্ট সেটআপ করতে হবে। এটি খুবই সহজ কাজ সবগুলো অপশন সঠিকভাবে ফিলআপ করবেন।

আপনার পার্সোনাল ইনফরমেশন, প্রোডাক্ট ডিটেইলস,কাস্টমার বিলিং অপশন, এবং ব্যাংকিং ইনফরমেশন গুলো দিবে। এছাড়া ও আপনি পেমেন্ট মেথড পরিবর্তন করতে পারবেন।

৩। Checkout

এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার কাস্টমারের যাবতীয় তথ্য এখান থেকে নিতে পারেন। কাস্টমার কন্টাক্ট এবং কি কি ইনফরমেশন প্রয়োজন সেগুলোর জন্য ফর্ম তৈরি করে দিতে পারবেন।

৪। Shipping

এটি ও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শিপিং নির্ভর করে আপনার  বিক্রির ধরনের উপর। আপনি যদি নিজের প্রোডাক্ট বিক্রি করেন তবে আপনাকে শিপিং করতে হবে। আবার আপনি যদি ড্রপশিপিং করেন সেক্ষেত্রে শিপিং যাদের প্রোডাক্ট তারা ও করতে পারে।

 শিপিং আপনার ব্যবসায়ের পরিধির উপর নির্ভর করবে। আপনি যদি দেশে ব্যবসা করেন তবে শিপিং দেশের ভিতর হবে আবার বিশ্বব্যাপী করলে সারা বিশ্ব সিলেক্ট করতে পারবেন। 

এরপর আপনি আপনার শিপিং কস্ট সিলেক্ট করতে পারবেন। অর্থাৎ কোথায় ডেলিভারি দিতে কত টাকা শিপিং খরচ দিতে হবে। দামের উপর ভিত্তি করে আপনি আপনার শিপিং কস্ট সিলেক্ট করতে পারবেন। ফ্রি শিপিং করতে চাইলে কত টাকা পর্যন্ত সেটা ও নির্ধারন করে দিতে পারেন।

৫। Account

এই সেকশনে আপনি আপনার একাউন্ট সেট করতে পারবেন। আপনি যদি কোনো ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট রাখতে চান তবে এখান থেকে এপ স্টাপ এ গিয়ে সিলেক্ট করতে পারবেন। এবং তাদের এক্সেস নির্ধারণ করে দিতে পারবেন।

৬। Legal

এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখানে শপিফাই পলিসি, প্রাইবেসি পলিসি, টার্মস অব সার্ভিস ঠিক করে দিতে পারবেন। পলিসি তৈরি করার জন্য আপনাকে নতুন একটি ট্যাব নিতে হবে সেখান থেকে আবার অনলাইন স্টোর এ ক্লিক করে পেইজে এ যেতে হবে। 

সেখান থেকে এড পেইজে গিয়ে আপনি আপনার পলিসি নেম এবং পলিসি গুলো তৈরি করতে পারবেন। এছাড়া ও আপনি আরো কিছু পেইজ এড করতে পারেন যেমন; কন্টাক্ট পেইজ, এবাউট আস (About us) পেইজ। 

এরপর আপনাকে যা করতে হবে এইগুলাকে ম্যানু আকারে দেখাতে নেভিগেশন অপশনে যেতে হবে। এখানে আপনি আপনার ইচ্ছা মত এইগুলোকে সাজাতে পারবেন।

মেইন ম্যানুতে আপনি কি কি অপশন রাখতে চান সেগুলো সিলেক্ট করতে পারবেন। ফুটারে কি কি রাখবেন সেগুলো ও সিলেক্ট করতে পারবেন।


এরপর আপনাকে যেতে হবে "preference" অপশনে এখান থেকে আপনি গুগল এ্যানালাইটিক্স, ফেইসবুক পিক্সেল অ্যাড করতে পারবেন।আপনি যদি কোনো অ্যাড রান করতে চান।

ধাপ ৭ঃ

এইবার আপনি আপনার ব্যবসায়ের জন্য কিছু প্রোডাক্ট এড করবেন তো তার জন্য আপনাকে যেতে হবে প্রোডাক্ট অপশনে। এখানে আপনি যে রকমের প্রোডাক্ট সেল করবেন সেটি এড করবেন। 

যেমন আপনি যদি ড্রপ শিপিং করতে চান তবে প্রোডাক্টের নাম বা টাইটেল এড করবেন, প্রোডাক্ট এর বিবরণ দিবেন, কোনো ফ্রিকোয়েন্টলি আস্ক কোয়েশ্চান এড করতে চাইলে ও করতে পারবেন।

প্রোডাক্টের ইমেজ দিতে পারবেন। প্রোডাক্ট টাইপ সিলেক্ট করবেন তার ট্যাগ দিতে পারবেন যাতে কাস্টমার সহজেই সার্চ করে খুঁজে পায়। এরপর আপনি প্রাইসিং অপশনে আপনার প্রোডাক্টের প্রাইজ সিলেক্ট করবেন। তারপর ইনভেন্টরির পরিমান দিতে পারবেন।

এরপর আপনাকে এসইও "SEO" করতে হবে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তার জন্য আপনাকে এসইও "SEO" তে ক্লিক করে পেইজ টাইটেল দিতে হবে এবং প্রোডাক্টের কিছু বিবরণ দিতে হবে।

প্রোডাক্ট অপশন থেকে আপনাকে যেতে হবে কালেকশন এ যেখান থেকে আপনি আপনার লিস্টে থাকা প্রোডাক্ট এড করবেন। যেগুলো "Feature collection" হিসেবে দেখাবে।

ধাপ ৮ঃ

আপনি যদি আপনার প্রোডাক্টের জন্য কোনো ডিসকাউন্ট দিতে চান তবে ডিসকাউন্ট অপশনে চলে যান। সেখান থেকে ক্রিয়েট ডিসকাউন্টে ক্লিক করে আপনি আপনার ডিসকাউন্ট কোড,পার্সেন্টেজ,ফিক্সড এমাউন্ট,শিপিং সিলেক্ট করতে পারবেন।

এরপর আপনি অর্ডারে ক্লিক করে অর্ডার করলে যাতে  নোটিফিকেশন আসে সেটা সেট করতে পারেন।

এরপর এ্যালাইটিক্স এ গিয়ে আপনি আপনার ড্যাসবোর্ড "Dash Board" গুলো দেখতে পারেন।যেটি আপনার প্রোডাক্ট ভ্যালুেশন এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এছাড়া ও আপনি এপস অপশনে ক্লিক করে শপিফাই যেকোনো এপস এড করে দিতে পারেন। যাই হোক সেগুলো নিয়ে অন্য কোনো দিন আলোচনা করব।

ধাপ ৯ঃ

সব কিছু সেট করার পরে আপনাকে যেতে হবে Sellect a plan এ। আগেই বলেছি শপিফাই একটি পেইড ই-কমার্স সাইট। 

তাই আপনাকে আপনার স্টোর এর জন্য একটি প্ল্যান সিলেক্ট করে নিতে হবে।এখান থেকে আপনি বিভিন্ন প্ল্যান নিতে পারেন যেগুলো ২৯-২৯৯ ডলার পর্যন্ত। যা তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা।

তৈরি হয়ে গেলো আপনার শপিফাই স্টোর। আপনাদের কীভাবে কম সময়ে শপিফাই স্টোর তৈরি করবেন সেটি সম্পর্কে বলেছি। এই পোস্টে আপনার সময় বাঁচাতে কিছু বিষয় বাদ দিয়ে গেছি যেগুলো আপনাকে অন্য পোস্টের মাধ্যমে জানিয়ে দিব। 

আশা করি শপিফাই স্টোর সম্পর্কে একটি পূর্ণাঙ্গ ধারণা পেয়েছেন। তো আর দেরি না করে শুরু করতে পারেন আপনার শপিফাই স্টোর। পোস্ট টি কেমন লাগ জানাতে মন্তব্য করতে পারেন কমেন্ট বক্সে।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া