Borhan IT https://www.borhanit.com/2020/12/blog-post_64.html

সিগন্যাল ব্লক কিভাবে হয়

মোবাইল ফোন এখনকার আধুনিক যুগের অত্যাবশ্যকীয় এক যোগাযোগ মাধ্যম। যোগাযোগের আধুনিকায়নের প্রাথমিক মাধ্যম হিসেবে এসেছিল ল্যান্ডলাইন ফোন। একটি তারের সংযোগ থাকা সত্ত্বে আমরা দূর দুরান্তে কথা বলতে পারতাম। তার পর সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে, আমরা এসে পৌঁছালাম সেল-ফোনে। আমাদের প্রত্যেকের কাছেই এই ক্ষুদ্র ও গুরুত্বপূর্ণ ডিভাইসটি আছে।

সারা বিশ্বে মানুষের সংখ্যা ৭.১৯ বিলিয়ন সেখানে চলমান মোবাইলের সংখ্যা ৭.২২ বিলিয়ন। এর অর্থ দাঁড়ালো মানুষ থেকে মোবাইলের সংখ্যা বেশি। আর মোবাইলের সংখ্যা দিনে দিনে বেড়ে চলেছে।

অধিক সংখ্যক মোবাইল মানে হলো, অধিক পরিমানে অপ্রত্যাশিত কল। অনেক উপায় অবলম্বন করে আমরা মোবাইলের অপ্রত্যাশিত কল রুখতে পারি। আমরা হয়ত মোবাইল সাইলেন্ট বা ভাইব্রেট করে এর থেকে রেহাই পাবার চেষ্টা করে থাকি। অনেকক্ষেত্রে এটুকুই যথেষ্ট হয় না। সৌভাগ্য বশত, সেলফোন ব্লকার এখন বর্তমানে উপলব্ধ।

সিগন্যাল ব্লকার কী 

একটা একটা করে নাম্বার ব্লক করাটা কিছুটা বিরক্তিকর ব্যাপার বটে। আর এক্ষেত্রে সিগন্যাল ব্লকার আপনাকে একসাথে সব বিরক্তিকর ইনকামিং কল থেকে মুক্তি দিতে পারে। দেখে আপনার কাছ এমন মনে হতে পারে যে এটা অনেক জটিল কাজ। আসলে মোটেই জটিল না। একদম সহজ কাজ। একটি নেটওয়ার্ক সেল ফোনের ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে ওই ফোনে সিগন্যাল পাঠায়।

তারপর ব্লকার সেই সিগন্যালকে নিয়ে পৃথিবীর বাইরে পাঠিয়ে দেয়। যদি সিগন্যাল ব্লকার এতে সফল হয়, তাহলে সে আর ওই লোকেশন থেকে আর কোনো কল রিসিভ করবে না। এই ব্লকার ব্যবহার করার অনেক গুলো কারণ থাকে, প্রতিষ্ঠানের মালিক হয়ত চান না। তার কর্মচারীদের কাজের সময় বা মিটিং এ কোন ধরনের অপ্রত্যাশিত ব্যাঘাত ঘটুক। তাই তিনি হয়ত তার এরিয়া তে সিগন্যাল ব্লকার ব্যবহার করে থাকেন।

অনেক ক্ষেত্রে মানুষ নিজের নিরাপত্তার জন্য সিগন্যাল ব্লকার ব্যবহার করে থাকেন। হয়ত সেটা টেরোরিস্ট বা হ্যাকিং এই ধরণের অপ্রত্যাশিত ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য ।  এবং কেউ কেউ কলার যেন তাকে ট্রাকিং না করতে পারে  সেজন্য। “ফোন সুইচ অফ” এর জায়গায় “আউট অব সার্ভিস” নোটিফিকেশন ব্যবহার করে থাকে, সিগন্যাল ব্লকারের মাধ্যমে।

কারণ এই প্রক্রিয়াটা মোটামুটি “আনরিচেবল” বলতে পারেন।

সিগন্যাল ব্লকার কীভাবে কাজ করে?

প্রথমে কলের সিগন্যাল বোঝার আগে, এই প্রক্রিয়া কিছুটা কঠিন হতে পারে। সেলফোন, টাওয়ারের মাধ্যমে সিগন্যাল পাঠিয়ে কাজ করে। মোবাইল এই সিগন্যাল মোবাইলের লোকেশনের উপরে নির্ভর করে ধরে। সেলফোন টাওয়ার নির্দিষ্ট এরিয়া তে বিতরণ করার মাধ্যমে কাজ করে থাকে। তাই আপনি যখন আপনার ফোন নিয়ে ভ্রমণ করেন, তখন আপনার ফোন বিভিন্ন টাওয়ার থেকে সিগন্যাল সংগ্রহ করে থাকে।

আর আপনার সিগন্যাল ব্লকার একই টাওয়ারে রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি পাঠিয়ে কাজ করে থাকে। আর এই রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি অধিক শক্তি প্রয়োগ করে আপনার সেলফোনের সিগন্যালকে তার বশীভূত করে নিবে। মূলত, এটি আপনার ফোনের একই ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে টাওয়ারে সিগন্যাল পাঠায়। তবে ওই সিগন্যালটা আপনার ফোন থেকে যথেষ্ট শক্তিশালী।

আপনার ফোনের সিগন্যাল এবং এই সিগন্যাল ব্লকারের সিগন্যাল একে অপরের সাথে সংঘর্ষ হয়। এই সংঘর্ষের কারণে আপনার ফোনের সিগন্যাল এবং টাওয়ারের সিগন্যাল বিচ্ছিন্ন হয়ে পৃথিবীর বাইরে চলে যায়। এবং কলারকে “Out of services” নোটিফিকেশন দেখায়।

ফ্যারাডের খাঁচার মাধ্যমে সিগন্যাল ব্লকিং

ফ্যারাডের খাঁচা কী?

ফ্যারেডের খাঁচা (faradey cage) বলতে আমরা যেটা বুঝি, বিজ্ঞানী জোসেফ ফ্যারেড, ১৮৩৬ সালে এমন একটি খাঁচা তৈরি করেন, যা তিনি পরিবাহী তার দিয়ে তৈরি করেন। যখন কোন বিদ্যুৎ বা তরঙ্গ খাঁচাটির সংস্পর্শে আসে, তখন সেটা আর এই খাঁচার মধ্যে প্রবেশ বা অতিবাহিত হতে পারে না। বরং এটি মাটির নিচে চলে যায়। এবং এর ভেতরের সব জিনিসকে বাইরের তরঙ্গ থেকে প্রতিহত করে।


ফ্যারেড কেজ কীভাবে কাজ করে?

আপনার মোবাইল, ল্যাপটপ, রেডিও, ইত্যাদি যেকোনো টা যদি এই খাঁচার ভেতরে থাকে, তাহলে তার সিগন্যাল অকেজো হয়ে যাবে।আপনি এটাকে মাইক্রোওভেন (micro oven)এর সাথে তুলনা করতে পারেন। মাইক্রোওভেন থেকে যেভাবে কোনো তাপ বাইরে আসতে পারে না। ঠিক একইভাবে এই খাঁচার ভেতরেও কোনো তরঙ্গ প্রবেশ করতে পারে না।

আপনার ক্রেডিট কার্ড এর কভার এর দিকে খেয়াল করলে দেখবেন, এটি ফ্যারাডের খাঁচার আবরণে তৈরি করা হয়েছে। যাতে হ্যাকাররা এই তথ্য চুরি করতে না পারে। অর্থাৎ বুঝতেই পারছেন। যে এই ফ্যারেডের খাঁচার ভেতরে একটি ইলেকট্রোমেগনেটিক ফিল্ড তৈরি হয়, যেটা বাহিরের সকল রকম সিগন্যাল, নয়েজ, তরঙ্গ ভেতরে আসায় বাধা প্রদান করে।

আর সেজন্য এর মধ্যে কোন রকম সিগন্যালই কাজ করে না। হোক সেটা সেল ফোন নেটওয়ার্ক কিংবা অন্য কোন রেডিও, বা ওয়াই ফাই সিগন্যাল।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া