Borhan IT https://www.borhanit.com/2020/12/cmd.html

CMD ব্যবহার করে কিভাবে ভাইরাস রিমুভ করবেন

 আপনার প্রিয় পিসি বা ল্যাপটপ দিয়ে সারাদিন অনেক কাজ করেন। কিংবা হয়ত আপনার প্রিয় গেমটিও খেলে থাকেন পিসি বা ল্যাপটপে।

অথবা শফিং মলে ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত হতে চান না, সেজন্য হুট করেই বসে পড়লেন আপনার পিসি নিয়ে, আর এক জায়গায় বসে অনেক গুলো শফিং করে ফেললেন কোন ভোগান্তি ছাড়াই।

এককথায় গোটা দুনিয়াকে আমাদের হাতের মুঠোয় এনে দিয়েছে এই কম্পিউটার। কি করা যায় না কম্পিউটার দিয়ে, ইন্টারনেট ব্রাউজ, প্রোগ্রামিং এবং মুভি দেখা সহ নানাবিধ কাজ করতে পারেন।

কিন্তু এত এত কাজ করতে গিয়ে আপনার প্রিয় ল্যাপটপ টিতে  আপনার অজান্তেই অনেক ভাইরাস ঢুকতে পারে।

চলুন আজ আমরা ভাইরাস সম্পর্কে জেনে নিই এবং এই ভাইরাস গুলি সি-এম-ডি(CMD) Command Prompt ব্যবহার করে কিভাবে রিমুভ করতে পারবেন সে সম্পর্কে জেনে নিই।

কম্পিউটার ভাইরাস কি?

কম্পিউটার ভাইরাস হচ্ছে এমন একটি প্রোগ্রাম,  যা কম্পিউটারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রোগ্রাম গুলোর সাথে নিজেকে সেঁটে দিয়ে সেই প্রোগ্রাম এর একটি কপি হিসেবে সেখানেই সে তার বিস্তার ঘটাতে থাকে। 

বলতে পারেন এটি আমাদের শরীরে বসবাসরত নানা উপজীবের মত এটিও কম্পিউটারের এক ধরনের উপজীব।

ধীরে ধীরে এটি তার বিস্তৃতি ঘটিয়ে আপনার সাধের ল্যাপটপের সিস্টেমে সংক্রমণ ঘটিয়ে তার প্রোগ্রাম অকেজো করে দেয়।

কোথায় এবং কিভাবে আক্রমণ করে?

এটি আপনার বিভিন্ন ফাইল, ফোল্ডার, কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেমে আক্রান্ত হয়। এছাড়া ইউএসবি USB  ড্রাইভের মাধ্যমে এটি এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ও সংক্রমণ ছড়াতে পারে।

আপনি প্রতিদিনের ভাইরাস যদি রিমুভ করে ফেলতে পারেন, তবে আপনার কম্পিউটার তুলনা মূলক কম ঝুঁকিতে থাকবে। ভাইরাস ডিলেট এর ক্ষেত্রে আপনি সি-এম-ডি CMD ব্যবহার করতে পারেন।

যদি এই ভাইরাস কোনভাবে আপনার কোন ফাইল ডিলেট বা হাইড করে ফেলে সেক্ষেত্রে আপনি যেকোনো রিকভারি উইজার্ড ব্যবহার করে তা নির্বিঘ্নে ফিরিয়ে আনতে পারবেন।

সি-এম-ডি(CMD) দিয়ে কেন ভাইরাস রিমুভ করবেন?

সাধারন ভাবে যদি আপনি ভাইরাস ডিলেট করতে চান, তবে এটি সম্পূর্ণ ভাবে ভাইরাস রিড করতে পারে না এবং হিডেন ভাইরাস, বা লুকানো ভাইরাস ও দেখতে পারে না।

আর সি-এম-ডি(CMD) আপনার কম্পিউটারের যেকোনো ডেস্টিনেশনের ফাইল থেকে ভাইরাস রিমুভ করতে পারে, হোক সেটা কপি ভাইরাস, হোক সেটা হিডেন ভাইরাস।

সি-এম-ডি(CMD)  দিয়ে ভাইরাস রিমুভ করার জন্য আপনার লাগবে "attrib" কমান্ড।

 "attrib" কমান্ড আপনার ফাইলের সকল ডেটা প্রদর্শনে ও সম্পাদনায় আপনাকে সাহায্য করবে। এটি উইন্ডোজের সকল ভার্সনে আছে।

 

CMD ব্যবহার করে যেভাবে ভাইরাস রিমুভ করবেন

এবার আমরা ধাপে ধাপে দেখে নিব, কিভাবে সি-এম-ডি(CMD)  ব্যবহার করে ভাইরাস রিমুভ করবেন।

ধাপ ১:-  "Start menu" তে ক্লিক করে সার্চ বারে CMD টাইপ করুন, এরপর "Command Prompt" এ রাইট বাটন ক্লিক করে "Run as an administrator" সিলেক্ট করুন।

ধাপ ২ :-  এরপর প্রদর্শিত ইন্টারফেসে “F” টাইপ করে “Enter” চাপ দিন। (আপনি যেই ফাইল এর ভাইরাস রিমুভ করতে চান সেই নাম দিবেন)

ধাপ ৩ :-   টাইপ করুন “attrib -s -h -r /s /d *.*” এবং “Enter” চাপ দিন।

ধাপ ৪ :-  টাইপ করুন dir এবং “Enter” চাপ দিন। এবার আপনি নির্দিষ্ট ড্রাইভের সকল ফাইল দেখতে পাবেন।

ধাপ ৫ :-  খেয়াল করে দেখুন,  "autorun" নামের একটি ফাইল থাকতে পারে ".inf" এক্সটেনশন হিসেবে। আর আপনি যদি এমন নামের এবং এক্সটেনশনের ফাইল দেখতে পান, তাহলে এই ভাইরাস রিমুভ করতে del autorun.inf টাইপ করুন।

এখন 'attrib' কমান্ডের মূল প্রতীক গুলোর সাথে পরিচিত হই।

R –  এখানে  R এর অর্থ "Read-only" এর মানে হল, আপনি কাঙ্ক্ষিত ফাইলটি শধু দেখার অনুমতি পাবেন। কোনো রকম মোডিফাই করতে পারবেন না।

H – এখানে ই  H দিয়ে বোঝায় "Hidden", লুকানো ফাইল দেখার জন্য।

A – A দিয়ে বোঝায়  "Archiving"  এর মাধ্যমে আপনি ফাইল লোকেশন সেট করতে পারবেন।

S – S দিয়ে  "System", আপনি এখানে চাইলে নির্ধারিত ফাইলকে ইউজার ফাইল থেকে সিস্টেম ফাইলে নিতে পারবেন।

I -  I দিয়ে বোঝায় "not content indexed file"

"attrib" বিন্যাস

ATTRIB [+R | -R] [+A | -A ] [+S | -S] [+H | -H] [+I | -I] [drive:][path][filename] [/S [/D] [/L]]

যদি আপনার ইন্টারফেসে  "Access denied", লিখা নোটিফিকেশন আসে তাহলে যা করবেন।

  • নিশ্চিত হয়ে নিন আপনি Command Prompt কে "Run as an administrator" থেকে ওপেন করেছেন।
  • কাঙ্ক্ষিত ফোল্ডার বা ফাইলটি অন্য কোথাও ওপেন করা আছে কিনা।
  •  চিহ্নিত ফাইল/ফোল্ডারে পার্টিশনে রাইট বাটন ক্লিক করে "Security" থেকে পারমিশন চেক করে নিন।
  • Command Prompt থেকে CHKDSK কমান্ড এন্ট্রি করে ফাইল সিস্টেম Error এরোর কিনা চেক করে নিন।

সতর্কতাঃ ম্যানুয়াল কমান্ড পেশাদারদের জন্য নিরাপদ। কিন্তু আপনি যদি তেমন টা না হন। তাহলে এর সামান্য ভুল আপনার কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেমকে ড্যামেজ করে দিতে পারে।  তাই আপনার যদি এই ব্যাপারে ভালো ধারনা না থাকে। তাহলে এই চেষ্টা না করাই ভালো। তাই সতর্ক থাকুন।

ভাইরাস রিমুভ করার আরো তিন ভিন্ন পদ্ধতি

Command Prompt  আপনার কম্পিউটার এর ভাইরাস রিমুভ করা ছাড়াও আরো তিন ভাবে আপনার ভাইরাস রিমুভ করতে পারেন। সেগুলো হল।

  •  এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করে।
  • উইন্ডোজ ডিফেন্ডার ব্যবহার করে।
  • অথবা স্টোরেজ ডিভাইস টি ফরমেট দিয়ে

১নং পদ্ধতিঃ এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার

প্রায় সব কম্পিউটারে এন্টিভাইরাস সফটওয়ার ইন্সটল করা থাকে, আর না থাকলে আপনার পছন্দ মত এন্টিভাইরাস ইন্সটল করে নিবনে। যখনি কোনো ভাইরাসের আলামত পাবেন। এন্টিভাইরাস ওপেন করে রিফ্রেশ করে নিবেন।

২নং পদ্ধতিঃ উইন্ডোজ ডিফেন্ডার অ্যান্টিভাইরাস

উইন্ডোজ ডিফেন্ডার হল উইন্ডোজ ১০ এর জন্য তৈরি কৃত অ্যান্টিভাইরাস। এটি আপনার কম্পিউটারকে ভাইরাস, ম্যালওয়ার এবং স্পাইওয়্যার এর বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিবে। যদি আপনার থার্ড পার্টি কোন এন্টিভাইরাস ব্যবহার না করে থাকেন। তাহলে এটি আপনার কাজে আসবে।

ধাপ ১:-  "Settings" > "Update & Security" > "Windows Security".

ধাপ ২:-  "Virus & threat protection” এ ক্লিক করুন।

ধাপ ৩:-  "Threat history" সেকশনে এসে "Scan now"/ "Quick Scan" এ ক্লিক করে আপনার ভাইরাসটি স্ক্যান করে নিন।

 

৩নং পদ্ধতিঃ ফরমেটিং

ফরমেটিং হচ্ছে আপনার নির্দিষ্ট ফাইল বা ফোল্ডার এর সমস্ত ডাটা রিমুভ করার প্রক্রিয়া। আর যেহেতু সকল ফাইল রিমুভ হয়ে যাবে তাই এর সাথে ভাইরাস থাকলে সেটিও আপনার নির্দিষ্ট ফাইল থেকে রিমুভ হয়ে যাবে।

তবে এখানে লক্ষ রাখবেন যেই ফাইল আপনি ফরমেট দিতে চাচ্ছেন, সেটিতে কোন গুরুত্বপূর্ণ ফাইল আছে কিনা। থাকলে স্ক্যান করে তা সরিয়ে নিবেন।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া