Borhan IT https://www.borhanit.com/2021/02/-hedphon.html

হেডফোন ব্যবহারে কি ক্ষতি হতে পারে | হেডফোন ব্যবহারে ক্ষতিকর প্রভাব | হেডফোন ব্যবহারের নিয়ম

 তথ্য প্রযুক্তি বদলে দিচ্ছে পৃথিবীকে  বদলে গেছে মানুষের জীবন ধারা । ঘরে বসে মানুষ চলে যাচ্ছে  পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে আর এক প্রান্তে । বর্তমান প্রযুক্তি দুনিয়ায় ভার্চুয়াল মাধ্যমের জনপ্রিয়তা বাড়ছে । বিনদনের জন্য মানুষ বেছে নিয়াছে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যম এবং  অফিস-আদালত থেকে শুরু করে কর্মস্থলে,এমনকি সব কিছুতেই এই নির্ভরতা  বেড়েছে বহুগুন। উন্নত প্রযুক্তির সাথে সাথে মানুষ ও হয়ে গেছে আরাম প্রিয় ফলে আজ কাল মোবাইল আর ল্যাপটপ কম্পিউটার সাথে হেডফোন  হাতে না থাকলে এক মুহূর্তও চলা কঠিন।



হেডফোন ব্যবহার 

কিন্তু শুধু কি কাজে প্রয়োজনেই আমাদের ফোন,ল্যাপটপ কম্পিউটার  ?  না । বিনদন লাভের অন্যতম মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করছে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ । ঘরে বসে মোবাইল,ল্যাপটপ কম্পিউটার নিয়ে মেতে থাকছে সবাই হেডফোন ব্যবহার করে । শুধু তাই নই কর্মস্থলে , চলার পথে, আড্ডায় ও মানুষ এখন হেডফোন ব্যবহার করছে।

হেডফোন ব্যবহার করে কে কি করছে

হেডফোন ব্যবহার কারির মধ্যে সিংহভাগ তরুন-তুরুনি । অন-লাইনে গামেস খেলছে ,কেউ বা ইউটিউবে গান শুনছে , কিংবা নাতক-সিনেমা দেখছে, আবার কেউ বা ফোনে কথা বলছে সেক্ষেত্রে শব্দের কোলাহল আড়াতে ব্যবহার করছে হেডফোন। ঘণ্টার পর ঘণ্টার এই হেডফোন কানে রাখছে সবাই। যার ফলে শ্রবণেন্দ্রিয়ের ওপর প্রভাব পড়ছে।

দীর্ঘক্ষন হেডফোন ব্যবহারের ক্ষতিকর দিক গুলো 

  • শ্রবণ জতিলতা 
  • কানের ইনপেকশন
  • বাতাস প্রবেশের বাধা
  • সাময়িক বধির
  • কানের ব্যাথা
  • মস্তিষ্কের উপর খারাপ প্রভাব
  • সৃতি শক্তির উপর খারাপ প্রভাব 
  • নানা বিধ দুর্ঘটনা 

 শ্রবণ জতিলতা 

আপনি যে হেডফোন ব্যবহার করে  গান শোনেন তখন সরাসরি গানের শব্দ আপনার কানে আঘাত করে। যার কারনে আপনি আপনার কানের কিছু সমস্যাতে পরতে পারেন। হেডফোন ব্যবহারের সময়৯০ ডেসিবেল বা  তার বেশি মাত্রাই আওয়াজ সরাসরি কানে গেলে শ্রবণে সমস্যা হতে পারে ।

কানের ইনপেকশন

আপনার হাতের হেডফোন টি কি আপনার ব্যাক্তিগত ? হেডফোন কি আপনি অন্য কার সাথে শিয়ার করছেন? তাহলে নিজের অজানতেই নিজেকে ফেলছেন বিরাট ঝুকির মুখে। আমরা সকলেই কখন না কখন হেডফোন ভাগাভাগি করে ব্যবহার করেই থাকি। এতে সংক্রমন হওয়ার ঝুকি থাকে। এর ফলে বিভিন্ন  মানুষের কানের  ব্যাকটেরিয়া সহজেই আপনার হেডফোনের মাধ্যমে আপনার কানে প্রবেশ করতে পারে।

বাতাস প্রবেশের বাধা

অধিকাংশ হেডফোন এয়ার-টাইট ধরনের হয়।আই জন্য কানে বাতাস প্রবেশ করতে পারে না। হেডফোন কম্পানি গুলো তাদের হেডফোনের বেজ বাড়ানোর দিকে নজর রেখেছে প্রখর ভাবে। যার কারনেই আপনি ভাল কয়ালিটির গান শুনতে পারেন ।আপনি আপনার কানের যে অংশে হেডফোন লাগান তার ফলে কানের ছিদ্র পুরপুরি বন্ধ হয়া যায়।  যা কানের জন্য সমস্যার কারন হতে পারে। 

সাময়িক বধির 

গবেষকদের মতে হেডফোন অনেক সময় ধরে উচ্চ শব্দে গান শুনলে হেডফোন খোলার পরও কিছুক্ষণ কানে ভাল শোনা  যায় না। এক জন মানুষ যদি  ১৫ মিনিটের অধিক ৯০ থেকে ১০০ ডেসিবেলের বেশি শোনে তবে সে বধির হয়া জেতে পারে । এর ফলে খুবই মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। কখনই হেডফোন দিয়ে উচ্চ শব্দে গান শোনা থিক না। তাতে করে চিরদিনের জন্য শ্রবণশক্তি হাঁড়াতে পারে।

কানের ব্যাথা 

দীর্ঘক্ষন হেডফোন ব্যবহারের কারনে সাধারণত এই সমস্যা দেখা দিতে পারে ।  মাঝে মাঝে কানের ভিতরে কট  কট আওয়াজ ও ভোঁ ভোঁ আওয়াজ হয়া থাকে । অনেক সময় ধরে হেডফোন ব্যবহারের জন্য কান ব্যাথা করে যা পরে শ্রবণে সমস্যা হতে পারে ।

মস্তিষ্কের উপর খারাপ প্রভাব

আমারা সকলেই কম বেশি হেডফোন দিয়ে গান শোনি বা কথা বলি । কিন্তু কি জানি ? যে  এর ফলে আমাদের মাথার কতটা ক্ষতি হচ্ছে। অনেকেই হয়ত জানি কিন্তু মানি না আবার অনেকেই আদও কিছুই জানি না ত মানব কি । হেডফোন ব্যবহারের ফলে এর দ্বারা সৃষ্ট ইলেক্ট্রম্যাগনেটিক তরঙ্গ মস্তিষ্কের জন্য মারাত্মক বিপদ ডেকে আনছে । এর মধ্যে জারা ব্লুটুত হেডফোন ব্যবহার করছে তারা মারাত্মক ঝুকির মুখে পরতে পারেন । 


সৃতি শক্তির উপর খারাপ প্রভাব 

মানুষের কান সরাসরি মস্তিষ্কের সাথে যুক্ত । তাই হেডফোনে উচ্চ শব্দে গান শুনলে খুব বাজে ভাবে আপনার মস্তিষ্কে আঘাত করে । এর কারনে আপনার সৃতি শক্তি কমে জেতে পারে ।

নানা বিধ দুর্ঘটনা

হেডফোন ব্যবহার করে চলা ফেরা করার কারনে রাস্তাই দুর্ঘটনার সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে । হেডফোন কানে দিয়ে রাস্তাই হাতার সময় তারা অনেক আওয়াজ শুনতে পায় না এইভাবে কিছু লোক  দুর্ভাগ্য জনক দুর্ঘটনায় পতিত হয় । আবার দেখা যাচ্ছে যে হেডফোন কানে লাগানর ফলে দুর্ঘটনায় পতিত হতে যাচ্ছে তাকে অন্য একজন বাঁচাতে এসে দুর্ভাগ্যবশত সে নিজেই মারা যাচ্ছে । আপনার ভূলের কারনে অন্য মানুষ কে তার মাশুল দিতে হচ্ছে । প্রযুক্তি আমাদের জীবনকে সহজ ও সুন্দর করে তুলার জন্য, জীবনকে ধ্বংস করার জন্য নয় । 


হেডফোনে গান শুনুন কিছু নিয়ম মেনে 

যারা প্রতিনিয়ত হেডফোনে গান শুনেন তারা গান শুনুন কিছু নিয়ম মেনে । এতে আপনার জীবন ও কান দুই-ই বাঁচবে । দীর্ঘ  সময় হেডফোনে গান বা সিনেমা দেখতে চায়লে কিছুক্ষন  বিশ্রাম নিন । হেডফোন ব্যবহারের এমন কিছু নিয়ম জেনে নিন যা অন্তত কিছুটা  হলেও আপনাকে বাঁচাবে শারীরিক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করবে । 

এবার আসুন জেনে নেই হেডফোন ব্যবহারের এমন কিছু কৌশুল 

  • আপনি যে কোম্পানির ফোন ব্যবহার করছেন , ঠিক সেই একই কোম্পানির সে মডেলের ইয়ারফোন / হেডফোন ব্যবহার করুন ।
  • আপনার ইয়ারফোনে গান শুনার সময় দেখে নিন আপনি বাহিরের আওয়াজ শুনতে পাচ্ছেন কি না । বাহিরের আওয়াজ শুনতে না পেলে আপনার হেডফোনের আওয়াজ আরও কমান । 
  • হেডফোন লাগিয়ে পথে চলাচল বন্ধ করুন। হাতার সময় বা রাস্তা পারাপারে সময় ইয়ারফোন  ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন ।
  • দীর্ঘ সময় হেডফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে সচেতন হন । একটানা আধা ঘণ্টার বেশি ইয়ারফোন ব্যবহারের বিরত থাকুন । কোন সিনেমা দেখতে হলে আধা ঘণ্টা বিরতি  নিন ।  

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া